বন্ধন


লেখকঃ উস্তাদ নোমান আলী খান

ক্যাটাগরিঃ অনুবাদ: ইসলাম, আত্ম-উন্নয়ন, ইসলাম, বিয়ে

প্রকাশের সালঃ 16-02-2018

প্রচ্ছদ অলং‍করণঃ আহমেদ ইসমাইল হৃদয়

মূল্যঃ ২৫০

আইএসবিএন নংঃ 978-984-92959-9-0

সংস্করণঃ ১ম

মলাটঃ হার্ডকভার

কী আমাদের পরিচয়?

আমি কারও সন্তান, কারও আবার জীবনসঙ্গি, আবার কেউ আমাদেরই সন্তান। পারিবারিক, সামাজিত এমনকি আধ্যাত্নিক পরিমন্ডলে এই বন্ধনগুলোই আমাদের নানান পরিচয়ে পরিচিত করে। এই বন্ধনগুলোই আমাদের অস্তিত্ব, আমাদের পরিচয়। এই বন্ধনগুলোই আমাদের প্রত্যেকের জীবনকে সংজ্ঞায়িত করে। জীবনভর এই বন্ধুনগুলো নিয়েই তো আসলে এই আমরা।

জীবনের রঙে রঙিন, পার্থিব অথচ অপাংক্তেয়, একই সাথে অপার্থিব কিন্তু মায়াবি- এই অদ্ভুত বন্ধনগুলোর নিবিড় খুঁটিনাটি নিয়ে উস্তাদ নোমান আলী খান-এর মূল্যবান কথাগুলোই রূপরেখা পেয়েছে ‘বন্ধন’ বইটিতে।

নিজেদের আপন সম্পর্কের মিষ্টতা-তিক্ততার ভাষাগুলোই জড়ো হয়ে বইয়ের পাতায় শব্দ হয়ে ফুঁটেছে ‘বন্ধন’।



বইটির কয়েক পৃষ্ঠা পড়ুন


 Comments 2 comments

  • Jabal Att Tariq says:

    বই রিভিউ : বন্ধন
    লেখকঃ উস্তাদ নোমান আলী খান-এর লেকচার অবলম্বনে
    প্রকাশনী: গার্ডিয়ান পাবলিকেশন্স
    দাম:২৫০ টাকা।
    রিভিউ লিখেছেন: Jabal Att Tariq

    উস্তাদ নোমান আলী খান একজন দ্বীনের প্রচারক।
    অসাধারন একজন কুরআন বিশ্লেষক।
    বর্তমান সময়ের একজন শ্রেষ্ঠ বক্তা। তাঁর আলোচনা আপনার হৃদয়ে নাড়া দিবে। মূলত: তাঁর বেশকিছু লেকচার অবলম্বনেই বন্ধন বইটি প্রকাশিত হয়েছে। এই বইটিতে যেসব বিষয় নিয়ে আলোকপাত করা হয়েছে তা একজন পাঠকের মনে নি:সন্দেহে দাগ কাটবে।

    বইটিতে রয়েছে রাসূল (সা.) এর একটি ভুলে যাওয়া সুন্নাহ্। যা স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁর একটি সুন্নাহ আমরা প্রায় ভুলেই গিয়েছি। আর সেই সুন্নাহ্ ভুলে যাওয়ার দরুণ, আমাদের মাঝে স্থান পেয়েছে নানা ফিতনার। কখনো কখনো তা আমাদেরকে যেনার মত মারাত্নক কাজের সাথেও জড়িত করছে। আর তা হলো, বিধবাদের বিয়ে।

    বর্তমান সমাজব্যবস্থা এমন এক পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে, যেখানে একজন বিধবাকে বিবাহ করা যেন অপরাধ! আজকের এই সময়ে কেউ একজন পরিবারের বিনা বাঁধায় কোন এক বিধবা বোনকে বিয়ে করবেন, তা যেন এখন কল্পনা মাত্র। অথচ বিধবাদের বিয়ে করা রাসূল (সা.) এর একটি সুন্নাহ্। আর সেই সুন্নাহই কিনা আজকের মুসলিম সমাজ প্রায় ভুলতে বসেছে।

    বইটির দ্বিতীয় পরিচ্ছেদে রয়েছে-‘আমার ছেলেটা নামাজ পড়ে না! তাকে নিয়মিত মসজিদ মুখি করতে পারছি না। আমার মেয়েটাকে নামাজে মনোযোগী করতে পারছি না।’ এমন কিছু অভিযোগ! আমাদের অভিভাবকদের কাছ থেকে আমরা প্রায়ই শুনতে পাই। আর এই বিষয় নিয়ে মা-বাবাদের বেশ উদ্বিগ্ন দেখা যায়। উদ্বিগ্ন দেখানোটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এই উদ্বিগ্নতার দরুণ,ঘটে যায় বেশ কিছু অনাকাঙিক্ষত ঘটনা। উম্মাহর এই কমন সমস্যাটির সমাধান তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে।

    বইটিতে বিয়ে নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।
    ‘বিয়ে’ মানুষের জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। অথচ কখনো কখনো দেখা যায়,মা-বাবারা বিয়ের সময় তাদের পছন্দগুলোকে পাত্র-পাত্রীদের উপর চাপিয়ে দেন। অবস্থা দেখে মনে হয়, সন্তানের সুখের চেয়ে মা-বাবার স্ট্যাটাস মেইনটেইন করাটাই মূখ্য। আর তা মেইনটেইন করতে গিয়ে, বিশেষত মেয়েদের উপর মতামত চাপিয়ে দেওয়ার প্রবনতা তৈরী হচ্ছে। অথচ ইসলামের নিয়ম অনুসারে মতামত চাপিয়ে জোর করে বিয়ে দেওয়া, একটি মারাত্নক অন্যায়।

    বইটিতে রয়েছে পারিবারিক বন্ধন কিভাবে অটুট থাকবে, কি করলে পারিবারিক ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়, স্ত্রীর প্রতি স্বামীর দায়িত্ব আবার স্বামীর প্রতি স্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে বলা হয়েছে। রয়েছে স্বামী তার স্ত্রীর উপর নিজের অধিকার না খুঁজে তার উপরে কি কর্তব্য সে বিষয়ে সচেতনতা।

    বিবাহবহির্ভুত অবৈধ সম্পর্ক এর ব্যাপারে ‘বিয়ে আর ডেটিং কি এক’ এই বিষয়ে একটি প্রবন্ধ আছে যেটা থেকে এ বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায় ।

    মা -বাবার সাথে সন্তানের কিরকম সম্পর্ক হওয়া উচিৎ এ ব্যাপারে সূরাহ ইসরার২৩ ও ২৪ নাম্বার আয়াতের চুলচেরা বিশ্লেষণ এর মাধ্যমে পিতামাতার হক নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

    বইয়ে একটা অংশ পড়ে নিজের অজান্তেই চোখে পানি এসে গিয়েছিলো। …. এমন অনেক পিতামাতা আছেন, যখন তাদের সন্তান হাসপাতালের ইনকিউবেটর-এ থাকে, তারা ছোট্ট গ্লাসের বাক্সের দিকে তাকিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। দিন রাত ২৪ ঘণ্টা হাসপাতালে শুধু দাঁড়িয়েই থাকেন। কখনো বসেন না। ভেন্ডিং মেশিনের খাবার দিয়েই তাদের জীবন চলছে। আর ঠিক এই সন্তানই বড় হলে ফোন করে খবর নেয়ারও সময় হয় না। কত মা তার সন্তানকে ভূমিস্ট করতে যেয়ে মৃত্যুর কাছাকাছি চলে যায়। আর এখন তার ফোনের উত্তর দেয়াও অনেক কঠিন হয়ে পড়েছে। এখন তাঁকে কি দিচ্ছেন? সারা দিনে ২ মিনিটের মত সময়! তিনি যে গুরুত্বপূর্ণ সেটা ভাবার বোধ তাকে দিন।

    একটা সময় আপনি তার কাছে গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন, আর এখন তিনিই আপনার কাছে সবচে গুরুত্বহীন। এটা কতটা ন্যায্যবিচার? তারা মনে মনে প্রতিদিন এই যন্ত্রণা বয়ে বেড়ায়, আমি আমার সন্তানের কাছে কিছুই না। আমি তাদের কাছে কিছুই না। আমি তাদের কাছে মূল্যহীন। আমার জন্য তাদের হাতে কোন সময় নেই।

    যার কদর করি, আমরা তাকেই সময় দিই। আপনি বন্ধু – বান্ধবদের সাথে সময় কাটান। নিজের মতো করে থাকেন। মা-বাবাকে সময় দেন না। এই বদ অভ্যাসটা আপনিই বাড়তে দিয়েছেন। আর সময়ের সাথে সাথে তা শুধু আরও খারাপ হয়েছে।

    আমাদের পিতামাতা অনেক অনেক বেশি আবেগপ্রবণ। তারা অনেক কিছুই চেপে রাখেন। নিজে বাবা-মা না হলে এটা বুঝতে পারবেন না। আপনার বয়স ৬০ হলেও আপনি তাদের কাছে শিশু। তারা এখনো মনে করতে পারে, আপনার ময়লা ন্যাপি পরিষ্কার করার কথা। আপনাকে দুধ খাওয়ানোর কথা, কীভাবে ঢেকুর তুলেছেন, পিছনের সিটে বসানোর পর কীভাবে আপনাকে পরিষ্কার করেছে, খাইয়েছে, আরও কত কি! আপনার কিছুই মনে নেই! তাদের আছে।

    পিতা-পুত্রের সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিত তা ব্যখ্যা করতে গিয়ে হযরত ইউসুফ (আ.) এর সাথে পিতা হযরত ইয়াকুব (আ.) এর হৃদ্যতার যে উদাহরণ উল্লেখ করা হয়েছে তা অধিকাংশ পাঠকদের নতুন করে ভাবতে শিখাবে। পিতা-পুত্রের মধুর সম্পর্ক তৈরির গুরুত্ব তুলে ধরা হয়েছে। শিশুদের সাথে শৈশবেই বন্ধন তৈরি করতে না পারলে কৈশোরে তারা পিতা মাতার হাতছাড়া হয়ে যায়, বিষয়টি বেশ কিছু উদাহরণ দিয়ে বুঝানো হয়েছে।

    এই বইটিতে চমৎকার কিছু বিষয় সন্নিবেশ করা হয়েছে। যেমন:- বিধবাদের বিয়েঃ ভুলে যাওয়া সুন্নাহ
    /কিভাবে সন্তানদের নামাজের জন্য উৎসাহিত করবেন
    /জোর করে বিয়ে/গর্ভপাত/পতনপূর্ব অহংকার,/স্ত্রী এবং শ্বশুর-শ্বাশুড়ি/আপনার সন্তানকে সময় দিন/পুরুষেরা জান্নাতে হুর পাবে,নারীরা কী পাবে/ইসলামে স্ত্রীর অধিকার/আমার স্ত্রী হিজাব করছে না, কী করব/সন্তানকে কীভাবে ইসলামের শিক্ষা দেবেন/বাবা-মার সাথে/বাবা ও কাকের গল্প/সুখী দাম্পত্য জীবনের জন্য/সন্তানহীনতা কী আল্লাহর শাস্তি/নবী ইব্রাহিমের সন্তান ভাবনা/অর্ধাঙ্গীনি না কষ্টাঙ্গীনি/সবার আগে পরিবার/ব্যর্থ প্রজন্মের লক্ষণ/বিয়ে আর ডেটিং কী এক/সন্তান প্রতিপালন/সন্তানের সাথে আপনার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের গুরুত্ব/আমার সবচেয়ে প্রিয় দোয়া
    /দেশি বিয়ে

    বইটি আমাদের পারিবারিক জীবন এবং সংসার জীবনের সমস্যা সমাধানে বিশেষ ভূমিকা রাখবে নি:সন্দেহে। সেইসাথে আমাদের তরুণ প্রজন্মের আত্নউন্নয়ন এবং আদর্শ চরিত্র গঠনের ক্ষেত্রে বন্ধন বইটি বিশেষ সহায়ক হবে।

    প্রচ্ছদ, কাগজের মান, বাঁধাই, কভার সব কিছুই বেশ সুন্দর ও আকর্ষনীয়। দামও সাধ্যের ভেতর। যারা এখনো বইটি পড়েন নি,পড়ুন । ভালো লাগবে আশা করছি।

  • Mahfuzur Rahman Anas says:

    বই: বন্ধন
    লেখকঃ উস্তাদ নোমান আলী খান-এর লেকচার অবলম্বনে
    প্রকাশনী: গার্ডিয়ান পাবলিকেশন
    বিষয়: পরিবার ও পারিবারিক জীবন
    রিভিউ লিখেছেন: Mahfuzur Rahman Anas

    বইটা অনলাইনে অর্ডার করে উৎসুক ছিলাম কখন বইটা হাতে পাবো , অর্ডার করার পরেরদিন বইটি হাতে পেয়েই একদিনেই বেশ অর্ধেক পড়ে ফেললাম ।
    গার্ডিয়ানের সাথে পরিচয় মূলত লেখক আরিফ আজাদ ভাই এর প্যারাডক্স দ্বারা। লেকচার নির্ভর বইটি প্রথম প্রকাশ হয় ১৫ ফেব্রুয়ারি জাতীয় বইমেলা ২০১৮ ।

    বইটি মূলত পারিবারিক বন্ধন কিভাবে অটুট থাকবে কি করলে পারিবারিক ভাঙ্গন সৃষ্টি হয় , স্ত্রীর প্রতি স্বামীর দায়িত্ব আবার স্বামীর প্রতি স্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে আলোকপাত করা হয়েছে। এর একটা বিষয় খুব ভালো লেগেছে যে, স্বামী তার স্ত্রীর উপর নিজের অধিকার না খুঁজে তার উপরে কি কর্তব্য সে দিকটা সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ।
    সমাজে চলমান বিবাহবহির্ভুত অবৈধ সম্পর্ক এর ব্যাপারে ‘বিয়ে আর ডেটিং কি এক’ শিরোনামে একটি প্রবন্ধ আছে যেটা থেকে এ বিষয়ে সুন্দর ধারণা পাওয়া যায় ।

    মা -বাবার সাথে সন্তানের কিরকম সম্পর্ক হওয়া উচিৎ এ ব্যাপারে সূরাহ ইসরার২৩ ও ২৪ নাম্বার আয়াতের চুলচেরা বিশ্লেষণ এর মাধ্যমে পিতামাতার হক নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

    বাচ্চা জন্ম নেওয়ার পর থেকে তাদের বেড়ে উঠা নিয়ে তিনি বলেন , সন্তানদের সময় দেওয়া ও তাদের ভালো কাজের উৎসাহ প্রধান করতে হবে । গর্ভপাত, স্ত্রী ও শাশুড়ির সম্পর্ক ইত্যাদি এর সমন্বয়ে চমৎকার একটি বই। যারা বিয়ে করেন নি কিংবা করেছেন সবার জন্যই এতে পূর্ন শিক্ষার বিষয় রয়েছে ।

    পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধন কিভাবে অটুট রাখা যায় যে সম্পর্কে জানতে লেকচার নির্ভর বইটি সবার একবার করে পড়া উচিৎ বলে আমি মনে করি।

  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Fields with * are mandatory.

    গার্ডিয়ান পাবলিকেশন © ২০১৭-১৮
    Developed by: Al-Amin Firdows